৭ জুন পদত্যাগের ঘোষণা থেরেসা মে’র

অবশেষে নিজ দল কনজারভেটিভ পার্টির নেতাদের কাছে নতি স্বীকার করলেন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী থেরেসা মে। চাপের মুখে জানিয়ে দিলেন আগামী ৭ জুন তিনি প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব ও পার্টির শীর্ষনেতার পদ থেকে অব্যাহতি নেবেন। এরমধ্য দিয়ে থেরেসা’র ঘটনাবহুল তিন বছরের নেতৃত্বের বিদায়ঘণ্টা বাজল। শুক্রবার (২৪ মে) দ্য গার্ডিয়ানের খবরে একথা জানানো হয়েছে।

এদিন ডাউনিং স্ট্রিটে দেওয়া অশ্রুসিক্ত ভাষণে থেরেসা বলেন, ব্রেক্সিট বিষয়ে গণভোটের সম্মান রক্ষায় তিনি সর্বোচ্চ চেষ্টা করেছেন। ব্রেক্সিট সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন করতে না পারলে সেটি তার জন্য হৃদয়বিদারক হবে।

এখন যুক্তরাজ্যের মঙ্গলের জন্য নতুন প্রধানমন্ত্রী প্রয়োজন বলে জানান থেরেসা। দেশের ২য় নারী প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব তার জন্য সম্মানের উল্লেখ করে ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী আশা করেন, নিশ্চিতভাবে এটাই শেষ নয়। দেশের সেবা করতে পেরে সবার নিকট কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন তিনি।

এর আগে থেরেসা মে বলেছিলেন, ইউরোপীয় ইউনিয়নের (ইইউ) সঙ্গে ব্রেক্সিট চুক্তি সুরাহা না হওয়া পর্যন্ত তিনি পদত্যাগ করবেন না। তবে কনজারভেটিভ পার্টির নেতারা থেরেসাকে দায়িত্ব থেকে সরে দাঁড়াতে পীড়াপীড়ি করতে থাকেন। ইইউ ও যুক্তরাজ্য সম্মত হয়েছে, চলতি বছরের ৩১ অক্টোবর ব্রেক্সিট কার্যকর হবে।

গত ১১ মে, ব্রিটিশ পার্লামেন্টে কনজারভেটিভ পার্টির এমপি স্যার গ্রাহাম ব্র্যাডি জানান, খুবই শীঘ্রই প্রধানমন্ত্রী থেরেসা মে তার পদত্যাগের দিনক্ষণ জানাতে পারেন। স্যার গ্রাহাম ব্র্যাডি কনজারভেটিভ পার্টির অভ্যন্তরীণ কার্যক্রম পর্যবেক্ষণকারী সংসদীয় গ্রুপ ‘১৯২২ কমিটির’ চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পালন করছেন।

উল্লেখ্য, ব্রেক্সিট জটিলতায় ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী ডেভিড ক্যামেরনের পদত্যাগের পর ২০১৬ সালে তার স্থলাভিষিক্ত হন থেরেসা মে। থেরেসা মে ২০১০ থেকে ২০১৬ সাল পর্যন্ত ক্যামেরনের মন্ত্রিসভায় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করেছেন।

About

Check Also

চলে গেলেন অ্যান্ড্রু কিশোর

নন্দিত কণ্ঠশিল্পী অ্যান্ড্রু কিশোর আর নেই। সোমবার, ৬ জুলাই তিনি শেষ নিশ্বাস ত্যাগ করেন। তিনি …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *