Home / জাতীয় / প্রথমবারের মত মীনাবাজার ও ঈদ আনন্দমেলা অনুষ্ঠিত

প্রথমবারের মত মীনাবাজার ও ঈদ আনন্দমেলা অনুষ্ঠিত

১১ই আগস্ট জাপানে পালিত হয় পবিত্র ঈদ-উল আজহা । সামার ভ্যাকেশন এর লম্বা ছুটিতে স্মরণকালের মধ্যে প্রথমবারের মত বাংলাদেশী সহ অন্যান্য মুসলিমরা মহা ধূমধামে  জাপানের গুম্মায় উৎযাপন করে ঈদের দিনটি ।

ঈদের আনন্দকে পূর্ণতা দিতে, ঈদের ৪ দিন পর ১৬ই আগস্ট গুম্মা, তোচিগি ও সাইতামা প্রবাসী বাংলাদেশী ‘রা আয়োজন করে ঈদ আনন্দমেলা ও মীনাবাজার ২০১৯ ।

উল্লেখ্য টোকিওর বাইরে এই প্রথমবার গুম্মা প্রিফেকচারে আয়োজিত হলো মীনাবাজার ।

জনাব আশিকুর রহমান রনি এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানটি পরিচালনা করেন হাফিজ কবির খান নাঈম । অনুষ্ঠানের দিনটিতে কিছু অফিস খোলা ও  শুক্রবার জুমআ এর নামাজ থাকার কারণে শুরুটা কিছুটা বিলম্বিত হয় ।

প্রথমেই পবিত্র কোরআন তিলাওয়াত করে ছোট বন্ধু নাফি । তারপর সব ছোট বন্ধুদেরকে নিয়ে জাতীয় সংগীত পরিবেষণ করেন রওশন আফরোজ রুম্পা । বাংলাদেশের পতাকা হাতে দাড়িয়ে জাতীয় সংগীতকে সম্মান প্রদর্শণ করেন উপস্থিত সবাই  ।

জাতীয় সংগীত শেষে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও ১৫ই আগস্ট ঘাতকের নির্মম বুলেটে প্রাণদানকারী বঙ্গবন্ধু পরিবারের সকলের উদ্দেশ্যে শোক প্রকাশ করে দাড়িয়ে ১ মিনিট নীরবতা পালন করা হয় ।

কমিউনিটির পক্ষ্য থেকে সুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন যথাক্রমে জনাব মাসুদ আখতার লাবু ও ফারহানা আফরুজ মিতু । মীনাবাজারে স্টলদাতাদের পক্ষ্য থেকে বক্তব্য রাখেন ফাতেমা লুৎফর চম্পা । উপস্থিত বিশেষ অতিথিদের মধ্য থেকে বক্তব্য রাখেন জনাব আসলাম খন্দকার হীরা, জনাব শাহীন চৌধুরী, জনাব মোঃ গিয়াস, জনাব শাহ হোসেন, জনাব মোখলেসুর রহমান মনি ও মোঃ জসিম ।

বক্তব্যের পালা শেষ হলে গুণীজন সংবর্ধণা পর্ব পরিচালনা করেন আয়েশা সিদ্দিকা মিতু । গুম্মায় আয়োজিত প্রথম মীনাবাজারে কম্যুনিটির পক্ষ্য থেকে জাপানে বাংলা সংগীতে অসামান্য অবদানের জন্য ও সম্প্রতি কলকাতা থেকে রবীন্দ্র সংগীতের এ্যালবাম নীরব আশা প্রকাশ উপলক্ষ্যে রবীন্দ্র ভারতী বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সংগীতে স্নাতক ডিগ্রিধারিণী শাম্মী আখতার বাবলীকে বিশেষ সংবর্ধণা প্রদান করা হয় ।

এছাড়াও জাপানে প্রথম বাংলা কাগজের পত্রিকা মানচিত্র এর সম্পাদনা, কথাসাহিত্য ও রবীন্দ্র গবেষণায় অসামান্য অবদানের স্বীকৃতিস্বরূপ জনাব প্রবীর বিকাশ সরকারকে বিশেষ সম্মাননা স্মারক প্রদান করা হয় । উনার রচিত ২৩ টি গ্রন্থের মধ্যে রয়েছে শিশু কিশোর ছড়াগ্রন্থ, কাব্যগ্রন্থ, প্রবন্ধ ও উপন্যাস ।

বিশিষ্ট এই সাংবাদিক ও লেখক এই হঠাৎ দেশে যাওয়ার কারণে তিনি উপস্থিৎ থাকতে পারেননি । উনার অবর্তমানে উনার পক্ষে সম্মাননা গ্রহণ করেন আরেক বরেণ্য সাংবাদিক জনাব মোখলেসুর রহমান মনি ।

অতঃপর স্থানীয় প্রতিভার মূল্যায়ন পর্ব পরিচালনা করেন জনাব মিন্টু বড়ূয়া । স্থানীয় গুণী কণ্ঠশিল্পী দু’জন রাবিতা নওশী ও সাবরিনা জাহান এবং গুণী আবৃত্তিকার আয়েশা সিদ্দিকা মিতু কে বিশেষ মূল্যায়ন ও শুভেচ্ছা উপহার তুলে দেন কণ্ঠশিল্পী শাম্মী আখতার বাবলী ।

গুম্মার ঐজুমি বুনকামুরা কালচারাল সেন্টারে আয়োজিত এই ইনডোর মীনাবাজারে স্টল ছিল মোট ১৭ টি । স্বদেশী বিভিন্ন মুখরোচক খাবার এর মধ্যে ছিল চটপটি-ফুচকা, সিঙ্গারা, মিষ্টি, রসমালাই, লাড্ডু, চমচম, ছানা মিষ্টি, চিকেন ফ্রাই স্টিক, নানরুটি-কারী-ডাল, সাদা ভাত-মাছ-ভর্তা-গরুর ভূনা, পেটিস, মুরালি, ঝালমুড়ি, বিরিয়ানী, চা-ঠান্ডা পানীয় সহ আরো অনেক খাবারের স্টল ।

খাবারের স্টল গুলোর নামও ছিল নজরকাড়া ,  শাহাদাৎ দম্পতি পরিচালিত “ইয়ান তুন খাই যান” , শাহেদ আলম দম্পতি পরিচালিত “দেশী স্বাদ”, সুবিনয় দাস দম্পতি পরিচালিত “ভিলেজ ফুড”, আলম শীলা দম্পতি পরিচালিত “শীলার সৃষ্টি রসে ভরা মিষ্টি” সহ ছিল প্রবাস হালাল ফুড এর স্টল ।

স্টলগুলোতে  বিশেষ উল্লেখযোগ্য ছিল মেয়েদের সালোয়ার-কামিজ, শাড়ি, জুয়েলারী, কসমেটিক্স, জুতা; ছেলেদের পাঞ্জাবী- পায়জামা; ছোট বাচ্চাদের ড্রেস, খেলনার স্টল ।

নাইস কালেকশন, ইউনিক, বাংলার ললনা শাড়িতে অনন্যা, মেইড ইন বাংলাদেশ, A to Z, B & C শপিং, টোকিও বুটিকস & জুয়েলারী, ফ্যাশন ফরএভার, স্বপ্নালোকে বুটিকস নামে স্টলগুলো অনুস্ঠানটিকে করেছিল রঙ্গিন ।

ছিল ট্যুরস এবং এয়ার টিকেটিং স্টল “গিয়াস ট্যুরিজ্ম & ট্র্যাভেল সার্ভিসেস”, রেমিট্যান্স কর্নার “Pay forex”, সিডি ও বই এর স্টল “নীরব আশা” । যদিও শেষ মুহূর্তে   ” লারেলাপ্পা ” ও ” বিবেক বার্তা ” অনিবার্য কারণবশতঃ অংশগ্রহণ করতে পারেনি । ইনডোরে আইটেমসমৃদ্ধ স্টল পরিদর্শণ করা ছিল অতিথিদের জন্য দারুণ উপভোগ্য ।

তৃতীয় পর্বে ছিল সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান যা উৎসর্গিত হয় প্রয়াতঃ বরেণ্য কণ্ঠশিল্পী সুবীর নন্দী কে ।

সংগীত পরিবেশনায় স্থানীয় শিল্পীদের মধ্যে একে একে মঞ্চে আসেন মিন্টু বড়ূয়া , রওশন আফরোজ রুম্পা, মৃদুল বর্মণ , জাকির হোসেন, সামিনা পপি, ইউনিক জ্যোতি , হাফিজ কবির খান নাঈম এবং দুই গুণী কণ্ঠশিল্পী সাবরিনা জাহান  ও রাবিতা নওশী । আবৃত্তি পরিবেষণ করেন আয়েশা সিদ্দিকা মিতু, বিশেষ কৌতুক পরিবেষণ করে সবাইকে আনন্দ দেন আবু সুফিয়ান জুয়েল ।

শিশুদের জাপানীজ গান পরিবেশনায় ছিল সুহান, রাইনা, আরিয়ান, জেসিন, অরিস্যা, হরফ, আরোহা, আয়ান প্রমুখ শিশুশিল্পীরা । পরবর্তী পর্বে উপস্থিত সবাইকে নিয়ে করা হয় আকর্ষণীয় কুইজ । কয়েকটি ধাপ অতিক্রম করে কুইজে প্রথম, দ্বিতীয় ও তৃতীয় স্থান অর্জন করেন যথাক্রমে আয়েশা সিদ্দিকা মিতু, মোখলেসুর রহমান মনি ও মৌরি বড়ূয়া ।

সবশেষে মঞ্চে উঠে আসে জাপানে প্রথম বাংলা ব্যান্ডদল ঝিঁঝিঁপোকা । দিনটি ছিল বাংলাদেশের কিংবদন্তী শিল্পী ও রকস্টার আইয়ুব বাচ্চুর জন্মদিন তাই ঝিঁঝিঁপোকা ব্যান্ড এর সদস্যরা সবাইকে নিয়ে কেক কেটে পালন করে আইয়ুব বাচ্চুর মরণোত্তর প্রথম জন্মদিন । আর কেক কাটার সাথে সাথে ঝিঁঝিঁপোকা পরিবেষণ করে ট্রিবিউট সং ” চলো বদলে যাই ” ।

এরপর ঝিঁঝিঁপোকার মূল কনসার্ট এর আগে ব্যান্ডের মিউজিকে সংগীত পরিবেষণ করেন তোমোকো খন্দকার, রোমেল দিদার ও জনপ্রিয় কণ্ঠশিল্পী শাম্মী আখতার বাবলী ।

তারপর ঝিঁঝিঁপোকা ব্যান্ডের অনবদ্য পরিবেশনা দর্শকদের মাতিয়ে রাখে সন্ধ্যা ৭.৩০ পর্যন্ত । প্রায় ২০ টির মত অবিরত মনমাতানো গান এর মধ্য দিয়ে শেষ হয় ঝিঁঝিঁপোকা ব্যান্ড এর গুম্মায় প্রথম স্টেজ শো ।

সেই সাথে শেষ হয় গুম্মা, তোচিগি ও সাইতামা প্রবাসী বাংলাদেশীদের আয়োজিত প্রথম মীনাবাজার ও ঈদ আনন্দমেলা যেটাকে সংক্ষেপে E S C ও বলা যায় ।

E ( Entertainment ) S ( Shopping) C ( Charity )

উল্লেখ্য, ‘ মানুষ মানুষের জন্য ‘ – স্লোগানটি বুকে ধারণ করে মীনাবাজার এর মাধ্যমে সংগ্রহিত হয় বাংলাদেশের বন্যাদুর্গত ও ডেঙ্গুজ্বর আক্রান্ত দের জন্য বিশেষ

তহবিল ।

আয়োজক ও স্টলদাতাদের বিশেষ ধন্যবাদ জানিয়ে অনুপ্রাণিত করেছেন বিশেষ অতিথিবৃন্দ, যেন ভবিষ্যতে  আরো বড় পরিসরে এ অঞ্চলে ধারাবাহিক ভাবে অনুষ্ঠিত হয় মীনাবাজার ।

 

About polok chw

Check Also

যুবলীগ নেতা শামীম আটক

ডেস্ক রিপোর্টনগদ ১০ কোটি টাকা এবং ২০০ কোটি টাকার এফডিআরসহ রাজধানীর নিকেতন থেকে যুবলীগের কেন্দ্রীয় …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *